সুন্দরবনের কুখ্যাত হরিণ শিকারী সাত্তার মোড়লসহ ৩ জনের নামে মামলা


নিজস্ব প্রতিবেদক : সুন্দরবনে জবাই করা হরিণ সহ ২জন হরিণ শিকারী আটকের ঘটনায় কুখ্যাত হরিণ শিকারী জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা সাত্তার মোড়লসহ ৩ জনের নামে মামলা দায়ের করা হয়েছে। সোমবার বিকালে শ্যামনগর থানা পুলিশ বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন। যার নং-৩। অন্য আসামিরা হলেন, শ্যামনগর উপজেলার কদমতলা গ্রামের ইমান গাজীর ছেলে মঞ্জু গাজী ও পাতাখালি গ্রামের আমজাদ গাজীর ছেলে মহিবুল্লাহ গাজী।
আসামীদের মধ্যে মঞ্জু ও মহিবুল্লাহ আটক হলেও সাত্তার মোড়ল পলাতক রয়েছে বলে থানা সূত্রে জানা গেছে।
উল্লেখ্য: সোমবার ভোর রাতে সুন্দরবনের চুনকুড়ি নদী সংলগ্ন সুন্দরবন সাতক্ষীরা রেঞ্জের দোবেকী এলাকা থেকে ৩টি হরিণ, ৩টি একনালা বন্দুক ও একটি নৌকা এবং সাত্তার মোড়লসহ ৩জন চোরাশিকারীকে পুলিশ আটক করলেও সাত্তার মোড়ল প্রভাবশালী হওয়ায় অজ্ঞাত কারণে তাকে মামলা না জড়ানোর চেষ্টা করা হয়।
শ্যামনগর থানা ওসি সৈয়দ আব্দুল মান্নান জানান, সুন্দরবন সাতক্ষীরা রেঞ্জের গহীনে বনদস্যু জাকির বাহিনীর সদস্যরা ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চুনকুড়ি নদী সংলগ্ন দোবেকী নামকস্থান পুলিশের একটি টহল দল সেখানে অভিযান চালায়। এ সময় সেখান থেকে ৩টি জবাই করা হরিণ, ৩টি একনালা বন্দুক ও একটি নৌকাসহ উক্ত দুই চোরাশিকারী মঞ্জু ও মহিবুল্লাহকে আটক করা হয়।
এদিকে শ্যামনগরের একাধিক ব্যক্তি জানান, সাত্তার মোড়ল নিয়মিত সুন্দরবনের হরিণ শিকার করে প্রভাবশালী মহলে বিতরণ করে বিভিন্ন স্বার্থ সিদ্ধি করেন। যে কারণে সে চিহ্নিত হরিণ শিকারী হলেও তার বিরুদ্ধে ইতোপূর্বে কখনো কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।

Related posts