আম খান, রোগ বালাইয়ে ঝুঁকি কমান

আম অনেক উপকারী একটি ফল। আমের এই মৌসুমে নিয়মিত আম খেলে অনেক রোগ-বালাইয়ের আক্রমণ থেকে রেহাই পাবেন, সন্দেহ নেই। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে :  আমে বিদ্যমান বিটা-ক্যারোটিন এবং ক্যারোটেনয়েড শরীরের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করে তোলে। এতে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যায় অনেকটা। হজমে সহায়ক আম :  আমে বিদ্যমান বিশেষ ধরনের এনজাইম খাবার হজমে সহায়তা করে। আমের মধ্যে থাকা ফাইবার বিপাকক্রিয়ায় সাহায্য করে। অ্যাজমা প্রতিরোধ করতে : আমে প্রচুর ভিটামিন সি রয়েছে। শরীরে ভিটামিন সি এর মাত্রা বৃদ্ধি অ্যাজমা প্রতিরোধে দারুণ সহায়ক । ক্যানসার প্রতিরোধে :  কুয়েরসেটিন, আইসোকুয়েরসেটিন, অ্যাস্ট্রাগেলিন…

Read More

আমের পাতা খেলেও আছে অনেক উপকার

স্বাস্থ্য সংবাদ: আম পাতায় ভিটামিন এ, সি, কপার, পটাশিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়াম নানাভাবে মানুষকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে থাকে। শুধু তাই নয়, এতে একাধিক উপকারী এনজাইম, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-মাইক্রোবয়েল, শরীরের গঠনেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এখানেই শেষ নয়, এটি আরও নানাভাবে শরীরের উপকারে লেগে থাকে। হেঁচকি ওঠার মতো সমস্যা কমে : খেতে বসলেই কি হেঁচকি উঠতে থাকে? তাহলে নিয়মিত কয়েকটি আম পাতা পুড়িয়ে তার ধোঁয়া ইনহেল করুন। এমনটা করলে যে শুধু হেঁচকি ওঠার হেঁচকি কমবে, তেমন নয়, সেই সঙ্গে গলা সম্পর্কিত যে কোনও ধরনের রোগের প্রকোপ কমতেও দেখবেন সময় লাগবে না।…

Read More

যে সব রোগের মহৌষধ নিমগাছ!

স্বাস্থ্য ডেস্ক: নিম আামদের খুবই পরিচিত একটি গাছ। সকল রোগের মহৌষধ নামেও এটি বেশ পরিচিত। ঔষধি গাছ হিসেবে এর ডাল, পাতা, রস সবই কাজে লাগে। নিম একটি বহু বর্ষজীবি ও চির হরিত বৃক্ষ। নিমের পাতা থেকে আজকাল প্রসাধনীও তৈরি হচ্ছে। কৃমিনাশক হিসেবে নিমের রস খুবই কার্যকরি। নিম গাছের বিশেষ উপকারিতা ও গুণাগুণ নিয়ে আজ আলোচনা করা হল- ১. ম্যালেরিয়া থেকে মুক্তিঃ নিমের নির্যাস ব্যবহারে ম্যালেরিয়া প্রশমিত হয়। পানি বা এলকোহল মিশ্রিত নিম পাতার নির্যাস ব্যবহারে একই ধরনের ফল পাওয়া যায়। মানসিক চাপ ও অশান্তিঃ অল্প পরিমাণ নিম পাতার নির্যাস খেলে…

Read More

মুগ ডাল খাওয়ার নানা উপকারিতা

স্বাস্থ্য ডেস্ক: মুগ ডাল পছন্দ না এমন মানুষ পাওয়া কঠিন। প্রোটিন, ফাইবার, ফলেট, ম্যাগনেসিয়াম, ভিটামিন বি১, ম্যাঙ্গানিজ, ভিটামিন বি৫, বি৬ এবং ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ এই ডালটি নিয়মিত খেলে শরীরের কোনও ক্ষতি তো হয়ই না, উল্টে একাধিক উপকার পাওয়া যায়। মুখ গহ্বর সম্পর্কিত রোগ দূরে থাকে : মুগ ডালে ক্যালসিয়াম, সোডিয়াম এবং আরও সব উপকারি উপাদান শরীরে প্রবেশ করার পর এমন খেল দেখায় যে মুখ গহ্বর সম্পর্কিত যে কোনও সমস্যা মাথা চাড়া দিয়ে ওঠার সম্ভাবনা যায় কমে। চুলের সৌন্দর্য বাড়ে : নিয়মিত মুগ ডাল খাওয়া শুরু করলে শরীরের কপারের ঘাটতি দূর হতে…

Read More

কোষ্ঠকাঠিন্যে প্রাকৃতিক চিকিৎসা

স্বাস্থ্য সংবাদ: আমরা যেসব বস্তুকে খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করি তার একটা অংশ হজমের মাধ্যমে শরীরে প্রবেশ করে আর বাদবাকি অংশ মলে পরিণত হয়। খাদ্যতন্তু বা ফাইবার পেটে হজম হয় না এবং মল তৈরির প্রধান উপাদান হিসেবে বিবেচ্য। সুস্থ মানুষের প্রতিদিন এমন পরিমাণ মল তৈরি হওয়া উচিত যাতে (মলাধার) মলের থলে অন্তত একবার ভর্তি হয় তাতে দিনে একবার মলত্যাগ করার প্রয়োজন হবে। নিয়মিত মল ত্যাগের অভ্যাস থাকলে কোষ্ঠকাঠিন্য হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। মল অধিক সময় ধরে মলাধারে জমা থাকলে অর্থাৎ নিয়মিত মলত্যাগ না করতে পারলে, মল থেকে পানি শোষিত হওয়ার ফলে…

Read More

ডায়াবেটিসমুক্ত থাকতে ৩০-এর পরে মেনে চলুন ১১টি নিয়ম

স্বাস্থ্য সংবাদ: অস্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রা, শরীরচর্চার অভাব, ঠিক মতো খাওয়া-দাওয়া না করা, অনেক রাত পর্যন্ত জাগা, ওবেসিটি প্রভৃতি আরও কারণ ডায়াবেটিস হওয়ার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। আর এ কারণেই ডায়াবেটিসকে প্রথম সারির লাইফস্টাইল ডিজিজ হিসেবে বিবেচনা করে থাকেন চিকিৎসক মহল। এখন প্রশ্ন হল, এমন রোগের খপ্পরে না পড়তে চাইলে তার জন্য কী করা যেতে পারে? জীবনযাত্রার সঙ্গে যেহেতু এই রোগের সরাসরি যোগ রয়েছে, তাই যে কোনও নিয়ম মানা শুরু করার আগে জীবন শৈলীতে পরিবর্তন আনাটা জরুরি। না হলে কিন্তু কোনও উপকারই পাবেন না। তাই ঘুম থেকে খাওয়া-দাওয়া, এইসব ছোটখাট…

Read More

যে পাঁচ ধরনের মেডিক্যাল টেস্ট সব পুরুষেরই করা উচিত

স্বাস্থ্য সংবাদ: স্বাস্থ্যপরীক্ষা অতি জরুরি একটি বিষয়। সুস্থ থাকলেও বেশ কিছু ক্ষেত্রে মাঝে মাঝে মেডিক্যাল চেকআপের দরকার রয়েছে। এখানে বিশেষ করে পুরুষদের কিছু স্বাস্থ্যপরীক্ষার কথা জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। আপনার বাবা, ভাই কিংবা পরিবারের যেকোনো পুরুষকে ছয় মাস বা বছরখানেক পর পর অন্তত ৫টি পরীক্ষা করিয়ে নেয়া উচিত। পরিবারের বয়স্ক পুরুষদের জন্যে এই পরীক্ষা আরো বেশি জরুরি। অনেকে হয়তো ঠিকমতো জানেনই না। আবার অনেকের হাতে পরীক্ষা করিয়ে নেয়ার সময় কোথায়? কেউ বা তেমন পাত্তাই দিতে চান না। কিন্তু সবার জন্যে এগুলো অতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। সচেতনতাই সর্বোত্তম প্রতিরোধব্যবস্থা। ১. প্রথমেই তার হার্ট অ্যাটাকের…

Read More

গরম থেকে বাঁচতে রোজ শসা খান

স্বাস্থ্য সংবাদ: বাংলাদেশেসহ পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে যেভাবে গরম বাড়ছে, তাতে শরীরকে চাঙ্গা এবং রোগমুক্ত রাখতে শসার কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে। একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতিদিনের ডায়েটে যদি শসাকে অন্তর্ভুক্ত করা যায়, তাহলে শরীরের পানির মাত্রা বাড়তে শুরু করে। ফলে রোগমুক্ত জীবন পাওয়ার স্বপ্ন পূরণ হতে সময় লাগে না। সেই সঙ্গে আরও নানা উপকার পাওয়া যায়। হার্টের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটে : নিয়মিত শসা খাওয়া শুরু করলে শরীরে পটাশিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়ামের মাত্রা বাড়তে শুরু করে, যার প্রভাবে হার্টের ক্ষমতা এতটা বেড়ে যায় যে কোনও ধরনের হার্টের রোগ ধারে কাছে ঘেঁষতে পারে…

Read More

বেশি আমিষ খেলে উপকারের চেয়ে অপকারই বেশি!

স্বাস্থ্য ডেস্ক: আমিষ মানব দেহ গঠনের ক্ষেত্রে একটি অন্যতম প্রধান উপাদান। এটিকে খুব গুরুত্বপূর্ণ অনু বলা হয় যা কোষ গঠনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি কাজ করে। এছাড়াও দেহের প্রত্যঙ্গগুলো এবং টিস্যু বা কলা নিয়ন্ত্রণ করে। নিসন্দেহে এটি অন্যতম মৌলিক ভূমিকা পালনকারী। তার অর্থ এই নয় যে, অনিয়ন্ত্রিতভাবে আমিষ খেতে হবে। আমিষ খাওয়ার ব্যাপারে কিছু সতর্কতা অবশ্যই মেনে চলতে হবে। তা না হলে উপকারের চেয়ে অপকারের আশঙ্কাই বেশি। মানবদেহের মাত্র ৭% আমিষ, ৭০% পানি, ২০% চর্বি, ২ বা ৩% বিভিন্ন ভিটামিন ও মিনারেল দিয়ে গঠিত। সুস্থ দেহে কতটুকু আমিষ প্রয়োজন? গবেষণা অনুযায়ী,…

Read More

ঘিয়ের ১০ উপকারিতা

খেলার খবর: খাবার রান্না করতে তেলের বিকল্প নেই। তবে বিশেষ কিছু খাবার যেমন কাচ্চি বিরিয়ানীসহ আরো অন্যান্য খাবার তৈরিতে ঘিয়ের প্রয়োজন হয়। শুধু প্রয়োজনে পড়ে বলেই আমরা সাধারণত ঢি ব্যবহার করে থাকি। তবে ঘিয়ের বহু উপকারিতা রয়েছে যা হয়তো আমরা অনেকেই জানি না। নিচে ঘিয়ের কয়েকটি উপকারিতা নিয়ে আলোচনা করা হলো : ১. স্ফুটনাঙ্ক- ঘি-এর স্ফুটনাঙ্ক খুব বেশি। ২৫০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড পর্যন্ত ঘি গরম করা যায়। অধিকাংশ তেলই এই তাপমাত্রায় গরম করলে ক্ষতিকারক হয়ে যায়। ২. নষ্ট হয় না- ঘি সহজে নষ্ট হয় না। প্রায় ১০০ বছর পর্যন্ত ঠিক থাকে…

Read More
Page 1 of 7812345...102030...Last »