পতিতাবৃত্তি করানোর অভিযোগে যুবলীগের তুহিনসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মানবপাচার আইনে মামলা

নিজস্ব প্রতিনিধি: শহরের সংগ্রাম টাওয়ারে গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে মানবপাচার আইনে মামলা হয়েছে।

এই মামলায় গ্রেপ্তার ৮ জন ছাড়াও সদ্য দল থেকে যুবলীগ নেতা তুহিনুর রহমান তুহিনকেও আসামি করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ- পরষ্পর যোগসাজসে সংগ্রাম টাওয়ারে অবস্থিত ঘটনাস্থলকে পতিতালয় হিসেবে ব্যবহার করে জনসাধারণকে পতিতাবৃত্তির জন্য আহবান করা। ঘটনাস্থল থেকে ৩০পিস কনডম উদ্ধার করা হয়েছে। মামলার বাদী সাতক্ষীরা গোয়েন্দা পুলিশের এসআই মো. ফরিদ হোসেন।

সাতক্ষীরা সদর থানায় দায়ের করা মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি সংগ্রাম টাওয়ারের নীচ তলায় অবস্থিত অভ্যর্থনা কক্ষ এবং ৫০১ ও ৫০২, ৪০৫ ও ৪০৬ নং রুমে কতিপয় ব্যক্তি পরস্পর যোগসাজসে পতিতালয় হিসেবে ব্যবহার করে পতিতাবৃত্তির উদ্দেশ্যে অশালীন ভাবভঙ্গি দেখিয়ে স্থানীয় জনসাধারণকে আহবান করছে। এসংবাদ পেয়ে উক্ত হোটেলে অভিযান পরিচালনা করে ৮জনকে হাতে নাতে গ্রেপ্তার করা হয়। এসময় আরও ৪/৫ জন পালিয়ে যায়। এসময় হোটেলের অভ্যর্থনা কক্ষের টেবিলের ড্রয়ার থেকে ১৮পিছ কনডম, ৫০৪ নং রুম থেকে ৪পিছ কনডম, ৪০৬ নং রুম থেকে ৩পিছ কনডম, ৫০১ নং রুম থেকে ৩পিছ ও ৫০২ নং রুম থেকে ২পিছ কনডম উদ্ধার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত আসামীরা হলো যশোরের মনিকতলা এলাকার রাসেল উদ্দিনের স্ত্রী সৃষ্টি আক্তার লতা (২৩), কলারোয়ায়ার কাজিরহাটের আবু বকর ছিদ্দিকের ছেলে আব্দুর রহমান (২৬), খুলনার জিরো পয়েন্টের আব্দুল মজিদের ছেলে ইউনুছ আলী (৩৩), ইটাগাছার আতিয়ারের ছেলে শাহিনুর (৩৪), একই এলাকার রেজাউলের ছেলে মাসুম বিল্লাহ (৩০), খড়িবিলার রফিকুলের ছেলে রনি (২৩), ইটাগাছার আহম্মদ আলীর ছেলে মিলন গাজী (৩০), গড়েরকান্দার রফিকের ছেলে ইব্রাহিম ওরফে রাজা। এছাড়া তুহিনুর রহমান তুহিনকে পালাতক দেখানো হয়েছে।

অভিযোগ রয়েছে দরিদ্র পরিবারের সন্তান এবং প্রাণসায়র পাড়ের খাস জমিতে বেড়ে ওঠা তুহিন কয়েক বছর আগেও ট্রাকের হেলপারি করতেন। কিন্তু যুবলীগের যোগ দিয়ে তিনি রাতারাতি আঙুল ফুলে কলাগাছ হন। তার মায়ের নামে প্রায় ৩০ লক্ষ টাকার এফডিআর করেছেন বলেও দাবি স্তানীয় যুবলীগ নেতাদের।

উল্লেখ্য, উক্ত তুহিনুর রহমান তুহিন একসময় যুবলীগের আব্দুল মান্নান গ্রুপের পৌর কমিটির সাধারণ সম্পাদক থাকলেও কয়েক মাস আগে থেকে সাতক্ষীরা পৌর যুবলীগের মাহি আলম-নান্টু গ্রুপের সভাপতি হন। তুহিনের হোটেলে অভিযানের খবর প্রকাশের পর সোমবার তাকে দল থেকে অব্যাহতি প্রদান করা হয়। তবে তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে সে নিজেকে জেলা যুবলীগের সদস্য হিসেবেও সে নিজেকে দাবি করেছে।

Related posts