সাতক্ষীরায় অসহায় পরিবারকে মাদকের অভিযোগে হয়রানির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

প্রেস বিজ্ঞপ্তি ঃ সাতক্ষীরার মেহেদিবাগে সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পারায় অসহায় পরিবারকে মাদকের মিথ্যা অভিযোগে হয়রানিসহ বিভিন্ন হুমকি ধামকি দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। রবিবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন শহরের মেহেদিবাগ এলাকার আব্দুল হামিদের স্ত্রী ভুক্তভোগী হালিমা খাতুন।
তিনি তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, আমার স্বামী পৌর আনসার ভিডিপি’র কমান্ডার ও ছেলে শহীদুল ইসলাম পিকআপ চালিয়ে অতিকষ্টে সংসার চালান। জীবনে কোনদিন মাদক ব্যবসা তো দূরের কথা মাদক সংশ্লিষ্ট কোন বিষয়ে আমার স্বামী বা পুত্র কেউ জড়িত ছিলেন না বর্তমানেও নেই। তবে জমি জমা সংক্রান্ত বিষয়ে পাশ্ববর্তী মুনসুর আলীর সাথে আমাদের বিরোধ হলে তিনি ষড়যন্ত্র করে আমাদের বাড়িতে ফেন্সিডিল রেখে পুলিশ দিয়ে আমাকে আটক করান। অথচ ওই জমির বিষয়ে আদালতের রায় আমার পক্ষে আসায় তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করেছিলেন। তিনি বলেন, গত ৩ বছর আগে আমাদের টাকার প্রয়োজন হওয়ায় আমরা একই এলাকার মৃত. বাহাদুর ঢালীর পুত্র নবজীবনের স্টাফ কামরুল ইসলাম এর কাছ থেকে ৪০ হাজার টাকা সুদে গ্রহণ করি। কিন্তু এর বিপরীতে তাকে প্রায় ১ লক্ষ টাকা পরিশোধ করার পরও সুদখোর কামরুল আরো ৫ হাজার টাকা দাবি করেন। কিন্তু আর্থিক সংকটের কারণে টাকা দিতে দেরি হওয়ায় কামরুল আমাকে বিভিন্নভাবে হুমকি ধামকি প্রদর্শন করতে থাকেন। বিশেষ করে আমার বিরুদ্ধে ওই ষড়যন্ত্র মূলক মিথ্যা মামলাকে পুঁজি করে বিভিন্ন অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যে স্থানীয় কয়েকটি পত্র-পত্রিকায় আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা মাদকের অভিযোগ তুলে কাল্পনিক সংবাদও পরিবেশন করিয়েছেন। এছাড়া শুক্রবার দুপুরে তার উপর হামলা হয়েছে মর্মে একটি মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও বানোয়াট তথ্য পরিবেশন করে থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছেন। অথচ শুক্রবার তার উপর কোন ধরনের হামলার ঘটনা ঘটেনি। উল্টো ওই কুচক্রী সুদখোর আমাকে এবং আমার একমাত্র পুত্রকে হয়রানি করার জন্য বাড়িতে মাদক দ্রব্য রেখে পুলিশি হয়রানি এবং মাদক ব্যবসায়ী বানানোর অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছেন। এছাড়া তিনি আমার একমাত্র কন্যাকে নিয়ে অবান্তর মন্তব্য করে পত্র-পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ করিয়েছেন। অথচ আমার কন্যা স্বামীর সংসার নিয়ে সুখে শান্তিতেই বসবাস করছিলেন। এরই মধ্যে তাকে নিয়ে এই মিথ্যাচার করায় তার সংসারের অশান্তির সৃষ্টি হয়েছে। তাদের ৩ বছরের একটি সন্তানও রয়েছে। এ সব বিষয়ে কামরুলের সাথে কথা বলতে গেলেই তিনি শুধু পুলিশের ভয় দেখিয়ে আমাদের দমিয়ে রাখার চেষ্টা করেন। আমরা বর্তমানে ওই কামরুলের ভয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। এমতাবস্থায় তিনি (হালিমা) সুদখোর কামরুলের ষড়যন্ত্রের হাত থেকে রক্ষা পেতে এবং তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবীতে সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন, তার ছেলে শহিদুল ইসলাম ও মেয়ে আজমিরা খাতুন।

Related posts