১২ দিন নিখোঁজ পুলিশ কন্সটেবল সাতক্ষীরার তৌহিদুজ্জামান

নিজস্ব প্রতিবেদক: কর্মস্থল খাগড়াছড়ি থেকে বাগেরহাটে ছুটিতে আসার পথে নিখোঁজ হয়েছেন সাতক্ষীরা সদর উপজেলার গোবরদাঁড়ি গ্রামের পুলিশ কনস্টেবল মো. তেীহিদুজ্জামান।
গত ২০ নভেম্বর তিনি খাগড়াছড়ি সদর ফাঁড়ি থেকে ১৫ দিনের ছুটি নিয়ে বাগেরহাটে তার ভাড়া বাসায় ফিরছিলেন।
তৌহিদুজ্জামেনর পারিবারিক সূত্র জানিয়েছে তিনি রাত ১১ টা ৪০ মিনিটে তার স্ত্রী মোসলেমা খাতুনের সাথে ফোনে কথা বলেন। এর পর থেকে তার সাথে আর যোগাযোগ করা যায়নি। তার মোবাইল ফোনটিও বন্ধ পাওয়া গেছে। জানা গেছে ২৫ নভেম্বর অজ্ঞাত পরিচয় এক ব্যক্তি ফোন করে তার স্ত্রীকে জানায় ৫০ হাজার টাকা দিলে দুই ঘন্টার মধ্যে তারা তৌহিদুজ্জামানকে মুক্তি দেবে। পরদিন তৌহিদুজ্জামানের স্ত্রীর কাছে আবারও ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করে অজ্ঞাত ব্যক্তি ফোন করে।
কনস্টেবল তৌহিদুজ্জামানের ভাই ডা. রাশেদুজ্জামান জানান মোবাইল কললিস্ট ট্যাকিং করে ২০ নভেম্বর রাতে তার ভাইয়ের অবস্থান শরিয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার রুপ বাবুরহাটের নওদোবা এলাকায় ছিল বলে পুলিশ জানতে পেরেছে।
তিনি আরও জানান তার ভাইয়ের নিখোঁজ বিষয়ে খাগড়াছড়ির পুলিশ সুপারকে অবহিত করা হয়েছে। এ ছাড়া খাগড়াছড়ি সদর থানায় ও বাগেরহাট থানায় পৃথক জিডি করা হয়েছে। শরিয়তপুরের জাজিরা থানায় একটি এজাহার জমা দেওয়া হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন পুলিশের মহাপরিদর্শক বরাবর আবেদন পাঠানো হয়েছে।
নিখোঁজ তৌহিদুজ্জামেনর ভাই ডা. রাশেদুজ্জামান আরও জানান গত ১২ দিনেও তার ভাইয়ের খোঁজ না পাওয়ায় পরিবারের সদস্যরা মুষড়ে পড়েছেন। তার দুটি শিশু সন্তানও তাদের বাবার পথ চেয়ে বসে আছে। তাকে উদ্ধারের জন্য তিনি পুলিশসহ সর্বস্তরের মানুষের সহায়তা কামনা করেছেন।

Related posts