সর্বশেষ সংবাদ-
করোনা মহামারী স্বাস্থ্য ব্যবস্থার উন্নতিতে বড় ভূমিকা রেখেছে: সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রীজুন মাসে দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় ১০৪৭ জনের মৃত্যুভারত থেকে চাল আমদানির অনুমতি দিয়েছে খাদ্য মন্ত্রণালয়ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০১ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে সাতক্ষীরায় কেককাটাসাতক্ষীরায় হিন্দুধর্মালম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব রাথযাত্রা পালিতসাতক্ষীরায় ৮ দলীয় নকআউট ক্রিকেট টুর্নামেন্টে রনি ফিস একাদশ চ্যাম্পিয়নসাতক্ষীরায় ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণআশাশুনির পাইথালী টু কালিবাড়ি সড়ক যেন মরণ ফাঁদ!আশাশুনির শোভনালীতে আইন শৃংখলা বিষয়ক মতবিনিময় পাচঁদিন ধরে নিখোঁজ কেশবপুরের স্কুলছাত্র নদী’র সন্ধান চায় পরিবার

আশাশুনির শোভনালীতে আইন শৃংখলা বিষয়ক মতবিনিময় 
 আশাশুনি প্রতিনিধি:
আশাশুনির শোভনালী ইউনিয়নের বদরতলা জে. সি. মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে আইন শৃংখলা বিষয়ক বিশেষ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে আশাশুনি থানার উদ্যোগে বদরতলা জে. সি. মাধ্যমিক বিদ্যালয় চত্বরে এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।
বদরতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের আয়োজনে প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শম্ভুজিত মন্ডলের সভাপতিত্বে এসময় প্রধান অতিথি ছিলেন আশাশুনি থানা অফিসার ইনচার্জ মমিনুল ইসলাম (পিপিএম)। প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক অরুন কুমার গাইনের সঞ্চালনায় সভায় দেবহাটা থানা অফিসার ইনচার্জ শেখ ওবায়দুল্লাহ,
আশাশুনি থানা ইন্সপেক্টর তদন্ত জাহাঙ্গীর হোসেন, শোভনালী ইউনিয়ন বিট পুলিশের এসআই আবুল হোসেন, বদরতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্যবৃন্দ, শিক্ষার্থীবৃন্দ, স্থানীয় বাজার ব্যবসায়ী ও গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। মতবিনিময় সভায় ইউনিয়নের বিভিন্ন সমস্যা ও সেগুলোরর সমাধানের বিষয়ে আলোচনা করা হয়।
0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest
পাচঁদিন ধরে নিখোঁজ কেশবপুরের স্কুলছাত্র নদী’র সন্ধান চায় পরিবার

মো: রাহাতুল ইসলাম :

পাঁচ দিনেও নিখোঁজ শিশু স্কুল ছাত্র নদী সরদারের খোঁজ মিলেনি।যশোর জেলার কেশবপুর উপজেলার পাজিয়া গ্রামের মোহন সরদারের ছেলে,স্কুল ছাত্র নদী সরদার (১৩)নামে শিশু নিখোঁজ হয় গত সোমবার বিকাল থেকে।

নিখোঁজ শিশুর মা রাধা সরদার ও বাবা মহোন সরদার বরাত দিয়ে মামা সংবাদকর্মী সজীব মন্ডল জানান,গত সোমবার বাড়ি থেকে নদী সরদার (১৩) তার বন্ধু সহপাঠী ইয়াছিন (১২) সাথে বের হয়।

কিন্তু দিনশেষে সন্ধ্যা নেমে আসে। তার বন্ধু ইয়াছিন বাড়ি ফিরলেও নদী বাড়িতে ফিরে নি। তার মা- বাবা আত্মীয় স্বজনরা আত্মীয়দের বাড়িতে বা এলাকায় বিভিন্ন বাড়িতে খোজাখুজি করে তার খোঁজ পায়নি। নদী সরদার কেশবপুর উপজেলার বড়েঙ্গা সম্মেলন বিদ্যাপীঠ এর ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র।

শিশুটির পরনে ছিল হলুদ গেঞ্জি, আর পরনে কালো ধরনের প্যান্ট,ও পায়ে কালো জুতা। এ ব্যাপারে যশোর কেশবপুর থানায় সাধারণ জিডি করা হয়েছে। তার মা রাধা সরদার শিশুটির সন্ধান লাভের জন্য (০১৮৭৬৬৪১৮৩৫) নাম্বারে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest
আদালত অবমাননা করে সুভাষ চৌধুরীর ডাকা সভায় সংঘর্ষের আশংকা : থানায় ডায়েরি

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:
আদালত অবমাননা করে ২জুন শনিবার প্রেসক্লাবে সুভাষ চৌধুরীর বিশেষ সাধারণ সভার ঘোষণায় সংঘর্ষের আশংকা দেখা দিয়েছে। এ পরিস্থিতিতে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবকে শান্ত রাখতে একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে।
গত ৩০ জুন সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের দপ্তর সম্পাদক শেখ ফরিদ আহমেদ ময়না সদর থানায় এ ডায়েরি করেছেন।

যার নং ২১০৯।
ডায়েরিতে উল্লেখ্য করা হয়েছে, গত ২৯.০৬.২০২২ তারিখে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সদস্য সুভাষ চৌধুরী আদালতের নির্দেশ অবমাননা করে আগামী ২ -জুলাই ২০২২ তারিখে বিশেষ সাধারণসভা আহ্বান করেছেন। যা আদালত অবমাননাকর ও প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্র পরিপন্থী। ওই আহ্বানে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি ও অনাকাংখিত ঘটনা সৃষ্টি হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। এনিয়ে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সদস্যদের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

দেখা দিয়েছে সংঘর্ষের আশংকা। যদি কোন অনাকাংখিত ঘটনার জন্ম নেয়, তার জন্য প্রেসক্লাবের সদস্য সুভাষ চৌধুরী দায়ী থাকবেন। আদালতের নির্দেশনার তোয়াক্কা না করে সভা আহবান করার কারনে ওই দিন সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে আইন শৃঙ্খলার অবনতি হওয়ার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে। এপরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আইনগত সহযোগিতা কামনা করে সাধারণ ডায়েরি করা হয়।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest
গরিব ও অসহায় ব্যক্তিদের মাঝে সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের চেক বিতরণ

নিজস্ব প্রতিনিধি : সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের উদ্যোগে ২০২১ – ২২ অর্থ বছরে রাজস্ব তহবিলের খাত (শিক্ষা ও চিকিৎসা) হতে গরীব ও অসহায় ব্যক্তিদের মাঝে চেক বিতরণ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) বেলা ১২ টায় সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের আয়োজনে জেলা পরিষদ প্রাঙ্গনে স্থানীয় সরকার বিভাগ সাতক্ষীরার উপপরিচালক ও জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মাশরুবা ফেরদৌস’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে চেক বিতরণ করেন সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের প্রশাসক ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো. নজরুল ইসলাম।

জেলার ১৩৬ জন ব্যক্তির মাঝে শিক্ষার উন্নয়ন ও চিকিৎসার জন্য ৮ লক্ষ ৮১ হাজার টাকার চেক বিতরণ করা হয়েছে। এ চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে জেলা পরিষদের কর্মকর্তা ও উপকারভোগীরা উপস্থিত ছিলেন। সমগ্র অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন জেলা পরিষদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা এস.এম খলিলুর রহমান।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest
বাংলাদেশে ঈদুল আজহা ১০ জুলাই

দেশের খবর: বাংলাদেশের আকাশে বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) সন্ধ্যায় জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেছে। আগামী ১০ জুলাই (রোববার) দেশে পবিত্র ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ উদযাপিত হবে।

রাজধানীর বায়তুল মোকাররমে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সভাকক্ষে বৃহস্পতিবার জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মু. আ. আউয়াল হাওলাদার।

হিজরি জিলহজ মাসের ১০ তারিখ ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ উদযাপন করেন।

সভায় অতিরিক্ত সচিব আউয়াল হাওলাদার জানান, সব জেলা প্রশাসন, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রধান কার্যালয়, বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়, আবহাওয়া অধিদপ্তর, মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র, দূর অনুধাবন কেন্দ্র থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী বৃহস্পতিবার বাংলাদেশের আকাশে হিজরি ১৪৪৩ সনের জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেছে। শুক্রবার (১ জুলাই) থেকে জিলহজ মাস গণনা শুরু হবে। আগামী ১০ জুলাই (১০ জিলহজ) রোববার দেশে ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে।

সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে বুধবার জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা যাওয়ায় আগামী ৯ জুলাই ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে। হজ অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৮ জুলাই।

ঈদুল ফিতরের পর ঈদুল আজহা মুসলমানদের দ্বিতীয় বড় ধর্মীয় উৎসব। ত্যাগের মহিমায় উদ্ভাসিত এ উৎসবে মুসলমানরা আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে তাদের প্রিয় বস্তু অর্থাৎ পশু কোরবানি করেন।

ঈদুল আজহা অনুষ্ঠিত হওয়ার সময়ই লাখ লাখ মুসলমান সৌদি আরবের পবিত্র ভূমিতে হজ পালনরত অবস্থায় থাকেন। হাজিরা ঈদের দিন সকালে কোরবানি দেন। করোনার কারণে গত দু’বছর পর এবার বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে হজ করতে যাওয়ার সুযোগ দিয়েছে সৌদি কর্তৃপক্ষ। তবে সংখ্যায় অন্যান্য বছরের অর্ধেক।

এবার ঈদে ৯, ১০ ও ১১ জুলাই সরকারি ছুটি থাকবে। তবে ঈদের ছুটির একদিন ৯ জুলাই পড়েছে শনিবার সাপ্তাহিক ছুটির মধ্যে।

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে গত দু’বছর (২০২০ ও ২০২১ সাল) বিধিনিষেধের মধ্যে কেটেছে ঈদুল আজহা। তবে সংক্রমণ একেবারে কমে যাওয়ায় গত ঈদুল ফিতর কেটেছে অনেকটা স্বাভাবিক অবস্থার মধ্যে। সবার প্রত্যাশা ছিল একইভাবে কাটবে কোরবানির ঈদও, কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে সংক্রমণের হার ফের ঊর্ধ্বমুখী। এরই মধ্যে মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে মানার নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। মসজিদে নামাজ আদায়ের বিষয়েও দেওয়া হয়েছে নানা বিধিনিষেধ।

তবে যানবাহন চলাচলের ওপর যেহেতু বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়নি, ধারণা করা হচ্ছে স্বাভাবিক সময়ের মতো গ্রামের বাড়িতে প্রিয়জনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে রেল, সড়ক ও নৌপথে রাজধানী ছাড়বেন অসংখ্য মানুষ। এতে ফাঁকা হয়ে পড়বে ঢাকা।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest
কালিগঞ্জে ১৫০ কেজি পুশ করা বাগদা চিংড়ি জব্দ : আগুনে পুড়িয়ে বিনষ্ট

কালিগঞ্জ প্রতিনিধি :
কালিগঞ্জ উপজেলা মৎস্য অফিসের অভিযানে দেড়শত কেজি পুশকরা বাগদা চিংড়ি জব্দ করে আগুনে পুড়িয়ে বিনষ্ট করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে কালিগঞ্জ উপজেলা সিনিয়র মহৎ কর্মকর্তা নাজমুল হুদা এর নেতৃত্বে বাথুয়াডাঙ্গা ও ফুলতলা মোড়ে পৃথক ভাবে অভিযান পরিচালনা করে অবৈধভাবে বাগদা চিংড়িতে পুশ করা বাগদা চিংড়ি জব্দ করা হয়।

উপজেলার বাথুয়াডাঙ্গা গ্রামের মৎস ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম বাড়িতে বাগদা চিংড়িতে বিভিন্ন অপ্রত দ্রব্য পুশ করার সময় উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা নাজমুল হুদা ও তার অফিসের স্টোপরা অভিযান চালিয়ে হাতে নাতে পুশ করা মাছ ধরেন ।

মৎস্য ব্যবসায়ী নজরুল ইসলামকে ১৫০০ টাকা জরিমান ও ৮০ কেজি পুশ করা বাগদা চিংড়ি জব্দ করে পরে পেট্রোল দিয়ে পুড়িয়ে বিনষ্ট করা হয়। পরে বেলা একটাই কালিগঞ্জ ফুলতলা মোড়ে অভিযান চালিয়ে বাঁশতলা বাজারের মাছ ব্যবসায় রেজাউল ইসলামের পুশ করা ৭০ কেজি বাগদা চিংড়ি প্যাকেটজাত করে ট্রাকে করে ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যে গাড়িতে উঠানোর সময় উপজেলা সিনিয়ার মৎস্য অফিসার নাজমুল হুদা এর দূরদর্শী ও সাহসিকতার পরিচয় দিয়ে পুশ করা বাগদা চিংড়ি গাড়ি থেকে নামিয়ে রাস্তার উপর প্রকাশ্য পেট্রোল দিয়ে পুড়িয়ে বিনষ্ট ও নষ্টকৃত চিংড়ি মাছ কাকশিয়ালি নদীতে ফেলে দেওয়া হয়।

এ সময় শত শত মানুষ চিংড়ি বিনষ্ট করার দৃশ্য দেখছিল। জানা গেছে কালিগঞ্জ ফুলতলা মোড় থেকে কাজল ট্রান্সপোর্ট এর মাধ্যমে ঢাকার মিরপুর দিয়াবাড়ি তপু মৎস্য এন্টারপ্রাইজের মাধ্যমে কালীগঞ্জ শহিদুল মাছের ব্যবসা করে থাকে। কালিগঞ্জ সহ অন্যান্য বাজার থেকে প্রতিদিন ট্রাকে করে এই সমস্ত মাছ ঢাকাতে বিভিন্ন বাজারে নিয়ে যাওয়া হয়। একশ্রেণীর মাছ ব্যবসায়ীরা অবৈধ পন্থায় অধিক মুনাফা লোভের আশায় সাদা সোনা নামে খ্যাত বাগদা চিংড়িতে জেলি, সাবু ,ভাতের মার, ভারী ময়লা পানিসহ অপদ্রব্য বাগদা চিংড়িতে পুশ করে ওজন বাড়িয়ে বিক্রয় করে আসছে। বিদেশে বিশ্ববাজারে বাংলাদেশের চিংড়ি মাছের গুণগত মান নিয়ে প্রশ্নবৃদ্ধ হচ্ছে। কালিগঞ্জ উপজেলা সিনিয়র মৎস্য অফিসার নাজমুল হুদা জানান এ ধরনের অভিযান প্রতিদিন অব্যাহত থাকবে।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest
বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির জেলা কমিটি গঠন

সাতক্ষীরায় বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির জেলা কমিটি গঠনের জন্য সভা অনুষ্ঠিত হয়। সাতক্ষীরা সরকারি মহিলা কলেজে উক্ত সভায় সাতক্ষীরা সরকারি মহিলা কলেজ ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক ও বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোঃ শফিকুর রহমান এর সঞ্চালনায় অধ্যক্ষ প্রফেসর বাসু দেব বসু এর সভাপতিত্বে নতুন কমিটি অনুমোদিত হয়।

সভায় বক্তব্য রাখেন সাতক্ষীরা সরকারি কলেজে অধ্যক্ষ প্রফেসর আমানউল্লাহ আল হাদী, কলারোয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর এস.এম আনোয়ারুজ্জামান,

আশাশুনি সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আবুল কালাম আজাদ, সাতক্ষীরা সরকারি মহিলা কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর আবু হেনা মোস্তফা কামাল, সরকারি মহিলা কলেজের শিক্ষক পর্ষদের সম্পাদক মোঃ আজিজুর রহমান প্রমুখ।

সভায় সাতক্ষীরা সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর বাসু দেব বসুকে সভাপতি ও সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের সহকারী অধ্যাপক অলিউর রহমানকে সম্পাদক করে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিতে সহ-সভাপতি পদে কলারোয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আনোয়ারুজ্জামান, সাতক্ষীরা সরকারি কলেজে অধ্যক্ষ প্রফেসর আমানউল্লাহ আল হাদী, যুগ্ম সম্পাদক পদে সরকারি মহিলা কলেজের বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোঃ শফিকুর রহমান, শ্যামনগর সরকারি মহসিন কলেজের প্রভাষক রাজু হোসেন, কোষাধ্যক্ষ পদে প্রভাষক শাহদাত হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক পদে সহযোগী অধ্যাপক শশীভূষণ পাল, সহকারী অধ্যাপক আবু বকর সিদ্দিক, তথ্য, গবেষণা ও সেমিনার সম্পাদক পদে মফিজুল ইসলাম,

সমাজকল্যান সম্পাদক পদে আয়শা আক্তার, দপ্তর সম্পাদক পদে এ এইচ এম মনিরুজ্জামান, প্রচার সম্পাদক পদে ফয়সাল আলম, নির্বাহী সদস্য পদে প্রফেসর আবুল কালাম আজাদ, প্রফেস হুমায়ুন করীর, প্রফেসর আবুল হাশেম, প্রফেসর বলাই চন্দ্র ঘোষ, প্রফেসর আবু সাঈদ, প্রফেসর মহাদেব চন্দ্র সিংহ, প্রফেসর আবু হেনা মোস্তফা কামাল, সহযোগী অধ্যাপক শরিফ উল আলম, সহকারী অধ্যাপক ফারুক হোসেন, স্বপন কুমার ঘোষ নির্বাচিন হন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest
দেবহাটায় মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে মিথ্যা ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন
দেবহাটা ব্যুরো : দেবহাটায় এক বীর মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে কতিপয় ব্যক্তির মিথ্যা ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। দেবহাটা রিপোটার্স ক্লাবে বৃহষ্পতিবার ৩০ জুন, ২২ ইং সকাল ১১ টার সময় উক্ত সংবাদ সম্মেলনটি করেন দেবহাটা উপজেলার বসন্তপুর গ্রামের মৃত শহর আলী গাজীর ছেলে বীর মুক্তিযোদ্ধা আনছার আলী (যার মুক্তিযোদ্ধা গেজেট নং ৭৯৬)।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, তিনি গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের গেজেটভুক্ত একজন মুক্তিযোদ্ধা। ১৯৮৭ সালের ২৫ জানুয়ারী তৎকালীন এরশাদ সরকারের সময়ে “দৈনিক ইত্তেফাক” পত্রিকায় বাংলাদেশের প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের খসড়া তালিকা প্রকাশিত হয়। সেখানে তার (আনছার আলী) নাম বৃহত্তর জেলার দেবহাটা উপজেলার তালিকাতে ২১ নং সিরিয়ালে আছে।
বাংলাদেশ সরকারের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের ২০০৫ সালের ২৭ জুন প্রকাশিত বেসামরিক গেজেটের ৬৯৪৩ নং পাতায় ২০১ নং সিরিয়ালে তার নাম প্রকাশিত হয়।
আনছার আলী বলেন, ১৯৯৪, ১৯৯৭, ২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত মুক্তিযোদ্ধাদের ভোটার তালিকার প্রতিটিতে তার নাম রয়েছে। ২০০৪ সালে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রনালয় থেকে তাকে সাময়িক সনদপত্র প্রদান করা হয় এবং সর্বশেষ গত বছর জামুকা থেকে যে যাচাই বাছাই করা হয় সেখানে সরকার নির্ধারিত যাচাই বাছাই কমিটির সকলের মতামতের ভিত্তিতে ২৫৮ নং ক্রমিকে ০১৮৭০০০৪৫০১ নং পরিচিতি নম্বরে তার নাম মোঃ আনছার আলী, পিতা- শহর আলী গাজী, গ্রাম- বসন্তপুর, ডাকঘর- দেবহাটা, উপজেলা- দেবহাটা, জেলা- সাতক্ষীরা এবং প্রমানকের বিবরন হিসেবে (বেসামরিক গেজেট ৭৯৬) সংরক্ষিত রয়েছে।
তিনি বলেন, উপজেলার বসন্তপুর গ্রামের মোহর আলী (৬৫), পিতা- মৃত দৌলত পাড় গ্রামের একজন দুষ্টু প্রকৃতির লোক। মোহর ইতিপূর্বে চোরাই পথে ব্যবসা করত। বর্তমানে সে একজন জামায়াত কর্মী এবং বিভিন্ন অপকর্মের সাথে জড়িত। নদীতে জাল ফেলাকে কেন্দ্র করে মোহরের সাথে তার কিছুদিন পূর্বে বিরোধ বাধলে সে বিভিন্নভাবে তাকে হয়রানি করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত আছে। খানজিয়া গ্রামের আব্দুস সাত্তার মোহরের আত্মীয় হওয়ার কারনে মোহরের সাথে সাত্তার ও এলাকার আরো ২/৩ জন ব্যক্তি মিলে তার (আনছার) বিরুদ্ধে মিথ্যা ও হয়রানিমূলক নানাভাবে ষড়যন্ত্র করছে। আনছার আলী বলেন, তিনি দেশের জন্য নিজের জীবন বাজি রেখে পরিবার পরিজন ফেলে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করেছেন। যারা তার বিরুদ্ধে এমন ষড়যন্ত্র করছে তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest