মোরগের ছুরির আঘাতে মালিকের মৃত্যু

ভিন্ন স্বাদের খবর : বিশ্বের অনেক অঞ্চলেই মোরগলড়াই বেশ জনপ্রিয়। তবে সেই মোরগলড়াইয়ে এবার ভারতের তেলেঙ্গনা রাজ্যে প্রাণ গেল এক মালিকের। লড়াইয়ের জন্য মোরগের পায়ে বাঁধা ছুরির আঘাতে প্রাণ হারিয়েছেন তিনি। তেলেঙ্গনা রাজ্যের লথুনুর গ্রামে চলতি সপ্তাহের শুরু দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। খবর বিবিসির।

পুলিশ জানিয়েছে, লড়াইয়ের জন্য ‘ঘাতক’ মোরগটিকে প্রস্তুত করছিলেন মালিক। কিন্তু হঠাৎ মোরগটি পালানোর চেষ্টা করে। এসময় এটিকে ধরতে যান মালিক। কিন্তু অসাবধানতাবসত মোরগের পায়ে বাঁধা ৭ সেন্টিমিটারের ( ৩ ইঞ্চি) ধারালো ছুরিতে আঘাত পান মালিক। পরে হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে।

এ ঘটনায় সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে হত্যাকাণ্ড, অবৈধ বাজি এবং মোরগলড়াই আয়োজনের অভিযোগ আনা হবে। পুলিশ ইতোমধ্যে ঘটনায় সংশ্লিষ্ট ১৫ জনকে খুঁজছে।

যে মোরগের পায়ে বাঁধা ছুরির আঘাতে মালিকের মৃত্যু হয়েছে সেটিকে একটি খামারে রাখা হয়েছে। এর আগে এটিকে পুলিশ স্টেশনে নেয়া হয়। প্রমাণ হিসেবে মোরগটিকে পরে আদালতে নেয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তা বি জেভান।

ভারতে মোরগলড়াই নিষিদ্ধ করে হয়েছে ১৯৬০ সালে। তবে এরপরও দেশটির বিভিন্ন এলাকায় মোরগলড়াইয়ের আয়োজন সাধারণ ঘটনা। বিশেষ করে সংক্রান্তি উৎসবে মোরগলড়াই আয়োজন ভারতে বেশ জনপ্রিয়।

তবে মোরগের হাতে মালিকের প্রাণহানির ঘটনা এটিই প্রথম নয়। গতবছর অন্ধ্রপ্রদেশে মোরগের পায়ে বাঁধা ব্লেডের আঘাতে প্রাণ হারান এক মালিক।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest
ইরফান সেলিমকে মাদক মামলায়ও অব্যাহতি

অনলাইন ডেস্ক : সংসদ সদস্য হাজী মোহাম্মদ সেলিমের ছেলে ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ৩০ নম্বর ওয়ার্ড (বরখাস্ত) কাউন্সিলর ইরফান সেলিমকে মাদকের মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন আদালত।

সোমবার ঢাকা মহানগর হাকিম শাহিনুর রহমান চূড়ান্ত প্রতিবেদন গ্রহণ করে তাকে অব্যাহতি দেন।

এর আগে ৫ জানুয়ারি ইরফানকে অব্যাহতির সুপারিশ করে মাদক ও অস্ত্র মামলায় চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করে পুলিশ।

গত ১৮ ফেব্রুয়ারি অস্ত্র মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদনটি গ্রহণ করে ওই মামলা থেকে ইরফান সেলিমকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

গত বছরের ২৫ অক্টোবর সন্ধ্যার পর ধানমণ্ডির কলাবাগান ক্রসিংয়ের কাছে হাজি সেলিমের গাড়ি থেকে বের হয়ে নৌবাহিনীর কর্মকতা লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ আহম্মেদ খানকে মারধর করেন ইরফান সেলিমসহ তার সহযোগীরা।

ঘটনাস্থলে লোকজন জড়ো হলে গাড়ি ফেলে আসামিরা পালিয়ে যান। পরে পুলিশ এসে গাড়ি ও মোটরসাইকেলটি জব্দ করে থানায় নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় পরদিন ভোরে ধানমণ্ডি থানায় ভুক্তভোগী নৌবাহিনীর কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ বাদী হয়ে একটি মামলা করেন।

ওই মামলায় ইরফান সেলিম, তার দেহরক্ষী জাহিদ ও ডেভেলপারস প্রতিষ্ঠানের প্রটোকল অফিসার এবি সিদ্দিক দিবু ও গাড়িচালক মিজানুর রহমানসহ অজ্ঞাত আরও তিনজনকে আসামি করা হয়।

ওই দিনই পুরান ঢাকার বড় কাটরায় ইরফানের বাবা হাজী সেলিমের বাড়িতে দিনভর অভিযান চালায় র‍্যাব। এ সময় র‍্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত মাদক রাখার দায়ে ইরফান সেলিমকে এক বছর কারাদণ্ড দেন। ইরফানের দেহরক্ষী মো. জাহিদকে ওয়াকিটকি বহন করার দায়ে দেন ছয় মাসের সাজা।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest
মার্চে আসছে জয়া ও পরীর দুই সিনেমা

বিনোদন ডেস্ক : আগামী মার্চে আসছে দর্শকনন্দিত অভিনেত্রী জয়া আহসান ও পরীমনি অভিনীত দুই সিনেমা।

তৌকির আহমেদ পরিচালিত পরীমনির ‘স্ফুলিঙ্গ’ সিনেমাটি আগামী ১৭ মার্চ প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাবে। এতে পরীমনি ছাড়াও শ্যামল মাওলা, জাকিয়া বারী মম, রওনক হাসান অভিনয় করেছেন। সম্প্রতি এই সিনেমার টিজার ও ‘তোমার নামে’ শিরোনামে একটি গান প্রকাশিত হয়েছে। যা দর্শকমহলে প্রশংসিত হয়েছে।

‘স্ফুলিঙ্গ’ সিনেমাটি নির্মিত হয়েছে তরুণদের ব্যান্ড সংগীত চর্চাকে কেন্দ্র করে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে সিনেমাটি নির্মিত হয়েছে। এই সিনেমার সংগীত পরিচালনা করেছেন পিন্টু ঘোষ।

আগামী ১৯ মার্চ মুক্তির কথা আছে হাবিবুর রহমান পরিচালিত বাংলা ভাষায় প্রথম থ্রিডি চলচ্চিত্র ‘অলাতচক্র’। জয়া আহসান, আহমেদ রুবেল অভিনীত সরকারি অনুদানে নির্মিত সিনেমাটির টিজার সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে। স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তিতে মুক্তিযুদ্ধের পটভূমিতে আহমদ ছফার উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত হয়েছে সিনেমাটি। ১৯৮৫ সালে প্রকাশিত হয় মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক উপন্যাস ‘অলাতচক্র’।

‘অলাতচক্র’-এ আরও অভিনয়- করেছেন আজাদ আবুল কালাম, শিল্পী সরকার অপু, শফিউল আলম বাবু, নুসরাত জাহান জেরী, সৈয়দ মোশাররফ প্রমুখ।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest
দলীয়ভাবে ইউপি নির্বাচনে অংশ নেবে না বিএনপি : মির্জা ফখরুল

রাজনীতির খবর : আগামীতে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয়ভাবে অংশ নেবে না বিএনপি। আজ রোববার রাজধানীর গুলশানে দলীয় চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

পরে সন্ধ্যায় একটি গণমাধ্যমকে বিষয়টি আবারও নিশ্চিত করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আমরা মনে করেছিলাম, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে অন্তত সরকার ও নির্বাচন কমিশন একটি সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠিতের ব্যবস্থা নেবে। কিন্তু এখন পর্যন্ত ইউনিয়ন পরিষদসহ পৌরসভা ও উপজেলা নির্বাচনে যা হয়েছে, এতো হতাশাজনক যে, আগামীতে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে আমরা দলীয়ভাবে অংশ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘সম্প্রতি অনুষ্ঠিত নির্বাচনগুলোতে এটা প্রমাণিত হয়েছে যে, এই নির্বাচন কমিশন কোনো নির্বাচনই নিরপেক্ষ, অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত করার জন্য যোগ্য নয়। বর্তমান অনির্বাচিত সরকারের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করাই এই নির্বাচন কমিশনের কাজ।’

আগামীতে সব নির্বাচনে অংশগ্রহণ থেকে বিএনপি বিরত থাকবে কি না? এমন প্রশ্নের জবাবে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এ বিষয়ে আমাদের স্থায়ী কমিটির পক্ষ থেকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হলে সবাইকে জানানো হবে।’

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest
৩২৩ ইউপিতে ভোট ১১ এপ্রিল, তফসিল ৩ মার্চ

অনলাইন ডেস্ক : আগামী ৩ মার্চ দেশের মেয়াদোত্তীর্ণ ইউনিয়ন পরিষদগুলোর (ইউপি) নির্বাচন শুরুর লক্ষ্যে প্রথম ধাপের তফসিল ঘোষণা করবে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এক্ষেত্রে প্রথম ধাপে ভোট হচ্ছে ৩২৩ ইউপিতে। রবিবার ইসি সচিব হুমায়ুন কবীর খোন্দকার এ তথ্য জানান।

ইসি সচিব বলেন, আগামী ৩ মার্চ ৭৭তম কমিশন বৈঠক শেষে এ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে। ১১ মার্চ নির্বাচনের তারিখ ইতোমধ্যে ঘোষণা করা হয়েছে।
এবারও গতবারের মতো চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রতীকে ইউপির ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। আর সদস্য পদে নির্বাচন হবে নির্দলীয়ভাবে।

বর্তমানে দেশে ইউপির সংখ্যা ৪ হাজার ৪৮৩টি। সবশেষ ২০১৬ সালে ছয় ধাপে ৪ হাজারের বেশি ইউপিতে ভোট করেছিল ইসি। সে সময় ২২ মার্চ ৭৫২টি, ৩১ মার্চ ৬৮৪টি, ২৩ এপ্রিল ৬৮৫টি, ৭ মে ৭৪৩টি, ২৮ মে ৭৩৩টি এবং ৪ জুন ৭২৪টি ইউপিতে অর্থাৎ ছয় ধাপে মোট ৪ হাজার ৩২১টি ইউপিতে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছিল। বাকি ১৬২টিতে অন্য সময়ে ভোট হয়েছে।

নির্বাচনের আইন অনুযায়ী, ইউপিতে নির্বাচন করতে হয় আগের নির্বাচন থেকে পরবর্তী পাঁচ বছর মেয়াদ শেষ হওয়ার পূর্ববর্তী ১৮০ দিনের মধ্যে। আর পরিষদের মেয়াদ হচ্ছে নির্বাচনের পর প্রথম সভা থেকে পরবর্তী পাঁচ বছর। সেই অর্থে এবার প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচন আইনের নির্ধারিত সময়ের পর হচ্ছে। কারণ ভোটার তালিকা প্রকাশ হবে আগামী ২ মার্চ। এক্ষেত্রে আইটি জটিলতা এড়াতে করোনা মহামারির সুযোগ নিয়ে ভোট কিছুটা পিছিয়ে দিয়েছে ইসি।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest
মিয়ানমারে বিক্ষোভ দমাতে জান্তা সরকারের গুলি, নিহত অন্তত ১৮

বিদেশের খবর : ক্রমেই আক্রমণাত্মক হয়ে উঠছে মিয়ানমারের জান্তা সরকার। ১ ফেব্রুয়ারি সেনা অভ্যুত্থানের পর থেকেই নিয়মিতভাবে বিক্ষোভকারীদের ওপর চড়াও হচ্ছে নিরাপত্তা বাহিনী। তবে ২৮ ফেব্রুয়ারি রবিবার বিক্ষোভকারীদের ওপর চূড়ান্ত রকমের সহিংস ভূমিকায় দেখা গেছে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের। এদিন পুলিশের গুলিতে অন্তত ১৮ জন নিহত হয়েছে। অভ্যুত্থানের পর এটিই একদিনে সর্বোচ্চ প্রাণহানির ঘটনা।

জাতিসংঘ মানবাধিকার দফতর জানিয়েছে, রবিবার দেশজুড়ে বিভিন্ন স্থানে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে সংঘাতে জড়িয়েছে পুলিশ এবং সামরিক বাহিনী। প্রাপ্ত বিশ্বাসযোগ্য তথ্য অনুযায়ী, এদিনের অন্তত ১৮ জন নিহত এবং কমপক্ষে ৩০ জন আহত হয়েছে।

আন্দোলনকারীদের একজন অ্যামি কিয়াও। পেশায় শিক্ষক কিয়াও জানান, তারা বিক্ষোভে নামামাত্র কোনও কথাবার্তা ছাড়াও গুলি চালাতে শুরু করে পুলিশ।

বিক্ষোভ দমাতে শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) থেকে বড় ধরনের ধরপাকড় অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ। বহু বিক্ষোভকারীকে আটক করা হচ্ছে। বিক্ষোভ ছত্রভঙ্গ করতেও গুলিবর্ষণ করা হচ্ছে।

রবিবার দেশটির প্রধান শহর ইয়াঙ্গুনে পুলিশ বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে। স্টান গ্রেনেড ও টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ নিক্ষেপ করে লোকজনকে ছত্রভঙ্গ করতে ব্যর্থ হয়ে একপর্যায়ে আন্দোলনকারীদের ওপর গুলি চালায় পুলিশ।

বৌদ্ধ সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশটির প্রথম ক্যাথলিক কার্ডিনাল চার্লস মাউং বো টুইটারে লিখেছেন, “মিয়ানমার যুদ্ধক্ষেত্রের মতো হয়ে গেছে”।

এদিকে সেনা অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে যে কোনও পদক্ষেপ নিতে শুক্রবার জাতিসংঘকে আহ্বান জানানোর পর বরখাস্ত হয়েছেন ওই সংস্থায় নিয়োজিত দেশটির দূত কিয়াও মোয়ে তুন। তিনি দেশটির জনগণের সুরক্ষা ও নিরাপত্তা প্রদানে অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন। এছাড়া মিয়ানমার প্রশ্নে জাতিসংঘের এক বিশেষ বৈঠকে সব সদস্য রাষ্ট্রকে অভ্যুত্থানের নিন্দা জানিয়ে প্রকাশ্যে বিবৃতি দেওয়ার তাগিদ দিয়েছিলেন তিনি।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest
সাতক্ষীরায় ডা. রুহুল হক টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টারের প্রশিক্ষণার্থীদের সনদপত্র বিতরণ

ডেস্ক রিপোর্ট : সাতক্ষীরার কালিগঞ্জের নলতায় প্রতিষ্ঠিত প্রফেসর ডা. রুহুল হক পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট অ্যান্ড টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টারের প্রথম ব্যাচের প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে সনদপত্র বিতরণ করা হয়েছে।

রোববার বিকালে সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও সাতক্ষীরা-৩ আসনের সংসদ সদস্য প্রফেসর ডা. রুহুল হক প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে এই সনদপত্র তুলে দেন।

অনুষ্ঠানে প্রতিষ্ঠানের পরিচালক মো. বদিউজ্জামানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল, সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম, শোভন গ্রুপের পরিচালক জিয়াউল হক, দেবহাটা উপজেলা চেয়ারম্যান মুজিবর রহমান, কালিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খন্দকার রবিউল আলম, কালিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নরিম আলী ও সাতক্ষীরা সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শেখ আব্দুর রশিদ প্রমূখ।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডা. রুহুল হক বলেন, দেশের উন্নয়নে ও বেকারত্ব দূরীকরণে কারিগরি শিক্ষার বিকল্প নেই। এজন্যই প্রফেসর ডা. রুহুল হক পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট অ্যান্ড টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টার স্থাপন করা হয়েছে।

এই প্রতিষ্ঠান কারিগরি শিক্ষার মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে প্রফেসর ডা. রুহুল হক পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট অ্যান্ড টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টারের প্রথম ব্যাচের ১৫০ জন প্রশিক্ষণার্থীর মাঝে সনদপত্র বিতরণ করা হয়।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, প্রফেসর ডা. রুহুল হক পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট অ্যান্ড টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টারের প্রথম ব্যাচের ১৫০ জন প্রশিক্ষণার্থীকে চাকরি দিয়েছে শোভন গ্রুপ।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest
বাঁশ হাতে ছাত্রদল নেতার পুলিশের দিকে তেড়ে যাওয়ার ছবি ভাইরাল

অনলাইন ডেস্ক : রোববার রাজধানীতে ছাত্রদলের সমাবেশ ঘিরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন নবী খান সোহেলসহ ছাত্রদলের প্রায় ৩০ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। এছাড়া আহত হয়েছেন পুলিশ ও সাংবাদিকরাও। এই সংঘর্ষের একটি ছবি এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হচ্ছে। ফেসবুকে অনেকে ছবিটি শেয়ার দিয়ে নানা মন্তব্য করছেন।

ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে, ছাত্রদলের এক কর্মী (তার নাম জানা যায়নি) বিশাল এক বাঁশ নিয়ে পুলিশের ওপর চড়াও হয়েছেন। তার সামনের বিপুল সংখ্যক পুলিশ সদস্য। কিন্তু তিনি একা। একাই তিনি বিশাল বাঁশটি নিয়ে পুলিশকে ধাওয়া করছেন। ছবিতে তার পাশে অন্য কাউকে দেখা যায়নি।

এই ছবি নিজের ফেসবুক পেজে শেয়ার করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের সাবেক সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুর লিখেছেন, ‌‘যৌবনের ধর্ম অন্যায়ের সাথে আপস না করা, যৌবনের ধর্ম অন্যায়কে রুখে দাঁড়ানো। ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হলে পেটোয়া বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।’

মিজানুর রহমান নামে একজন ফেসবুকে লিখেছেন, ‘ছবিটি প্রমাণ করে মনের সাহসই আসল সাহস।’

জুয়েল রানা নামের একজন লিখেছেন, ‘অনেক হয়েছে। এবার দেবার পালা।’

রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিয়ে পুলিশের সঙ্গে ছাত্রদলে ওই সংঘর্ষ হয়। সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ‘বীর উত্তম’ খেতাব বাতিল করার উদ্যোগের প্রতিবাদে প্রেসক্লাব এলাকায় ছাত্রদলের এই সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest