সর্বশেষ সংবাদ-
দেবহাটায় ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার নাম বাতিলে ডিসিসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগসাতক্ষীরায় কথিত জনকল্যাণ সমবায় সমিতির নামে কোটি টাকা আত্মসাৎসাতক্ষীরা সীমান্তে বিজিবি ও বিএসএফের মধ্যে ভলিবল প্রতিযোগিতাঅস্ত্র ও বিষ্ফোরক দ্রব্য আইনের দু’টি মামলার সাক্ষী দিলেন কলারোয়া উপজেলা আ’লীগের সভাপতি স্বপনসাতক্ষীরায় সৌদী ফেরত বৃদ্ধাকে পিটিয়ে জখমের অভিযোগকলারোয়ায় পরকীয়া প্রেমিকার সাথে দেখা করতে গেয়ে প্রাণ গেলো ব্যবসায়ীরশোভনালীতে বালির পরিবর্তে মাটি এবং নিন্ম মানের ইট দিয়ে সোলিং নির্মাণস্পিডগান ও সিসি ক্যামেরা বসানোর পর পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলবেবেগম খালেদা জিয়া এবং সাতক্ষীরা ছাত্রদলের সভাপতি’র মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভসাতক্ষীরা পৌর ওয়াস সদস্য ও খুচরা যন্ত্রাংশ সরবরাহকারীদের সাথে লিংকেজ সভা

IMG_20160823_113111দেবহাটা প্রতিনিধি: দেবহাটার নওয়াপাড়ায় ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ দেবহাটার নওয়াপাড়ায় ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় ইউনিয়ন পরিষদের সভা কক্ষে আলোচনা সভা শেষে উক্ত সামগ্রী বিতরণ করা হয়। ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান আবুল কাশেমের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল গনি। এসময় সকল ইউপি সদস্য, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। মোট ২৬ টি প্রতিষ্ঠানে এসব সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest

photo-1471920658স্ব‌দেশ: রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকাল ৮টা ১১ মিনিটে এ ভূমিকম্প অনুভূত হয়।

আবহাওয়া অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল মিয়ানমারে, যা ঢাকা থেকে ৪০৯ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে। রিখটার স্কেলে ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৪ দশমিক ৯।

তবে যুক্তরাষ্ট্রের ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা ইউএসজিএস জানায়, ভূমিকম্পের মাত্রা রিখটার স্কেলে পাঁচ দশমিক তিন। উৎপত্তিস্থল মিয়ানমারের মাওলাইক থেকে ৪০ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের কর্মকর্তা হানিফ শেখ বলছেন, ভূমিকম্পের মাত্রা মাঝারি মানের চেয়ে একটু কম ছিল।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest

images-1-picsayডি. এম. আব্দুল্লাহ আল মামুন: শ্যামনগর উপজেলার ছেলে আলমগীর কবীর রানা ক্রিকেটের পাশাপাশি জাতীয় ফুলবল দলের হয়ে এখন ভুটানের মাটিতে। দক্ষিণ অঞ্চলের সাতক্ষীরা জেলাতেই যখন ক্রিকেটে বিশ্বের কাছে জায়গা করে নিয়েছে মোস্তাফিজ, সৌম্য সরকার ঠিক তখন এদের মতো বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের হয়ে সুনাম অর্জন করেছেন শ্যামনগর উপজেলা সদরের হায়বাতপুর গ্রামের মৃত শেখ লুৎফর রহমানের পুত্র শেখ আলমগীর কবীর রানা।
ছোট একটি ভাতের হোটেল চালিয়ে শেখ লুৎফর রহমান তিন ছেলের মধ্যে মেজো ছেলে রানাকে নিয়ে সর্বক্ষন স্বপ্ন দেখতেন। তার স্বপ্ন আজ বাস্তবে রুপ নিলেও তিনি আজ পৃথিবীতে নেই। তাই ভুটানের মাটিতে খেলতে যাওয়ার আগে বাবার কবর ছুয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন রানা। সে তার বাবা হোটেল ব্যবসায়ী লুৎফর রহমানের জন্য সকলের কাছে দোয়া কামনা করেছেন।
সাতক্ষীরাকে মোস্তাফিজ ও সৌম্য সরকারের মত রানা ও ফুটবল জগতের মাধ্যমে চেনাতে সক্ষম হয়েছে। রানা ১৯ আগষ্ট বাংলাদেশের হয়ে এ,এফ,সি কাপ ফুটবল খেলার জন্য ভুটানে গেছেন।
জানা যায় ২০০৯ সালে ঢাকার বাড্ডা এলাকায় জাগরনী সংঘের হয়ে তিনি প্রথম খেলার জগতের সুনাম অর্জন করেন। ইতিমধ্যে ঢাকার মহামেডাম, শেখ জামাল ধানমন্ডি, শেখ রাসেল, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ এর হয়ে সুনামের সহিত খেলা করে আসছেন। নতুন করে শেখ রাসেলের হয়ে বি,পি,এল খেলছেন সাতক্ষীরার কৃর্তত্ব সন্তান রানা। যেমন দেশের সুনাম অর্জন করেছেন তেমনি বিশ্বের বিভিন্ন দেশেয় ফুটবল খেলায় অংশগ্রহন করে ভালো খেলোয়ার হিসেবে নিজের অবস্থান তৈরি করেছেন।
ইতিমধ্যে নেপাল, ভুটান, মালদ্বীপ, ভারত, গীরগীজস্থান, সীঙ্গাপুর, জর্ডান, কুয়েত এবং বাংলাদেশের জাতীয় দলের হয়ে খেলেছেন শেখ আলমগীর কবীর রানা। সাফল্যের সহীত ক্রীড়াঙ্গনে সুনামের সহিত থেকে সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলার সাধারন মানুষ, শিক্ষক, সুধীজন রানার সাফল্যকে সাধুবাদ জানিয়েছেন।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest

a6e5484ec45b2ad76a954549648d31d9-57bb5b0504ee3স্বদেশ: একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে সাজাপ্রাপ্ত ও জামায়াতে ইসলামীর সাবেক আমীর গোলাম আযমের ছেলে আবদুল্লাহিল আমান আযমীকে আটক করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে তার পরিবার। আযমী সেনাবাহিনী থেকে বরখাস্ত হওয়ার সময় ব্রিগেডিয়ার জেনারেল পদে কর্মরত ছিলেন।

সোমবার দিবাগত রাত একটার কিছু আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে দেওয়া এক স্ট্যাটাসে আযমীকে আটকের অভিযোগ করেন তার ভাই সালমান আল-আযমী। তার অভিযোগ, ডিবি পুলিশের অন্তত ৩০-৩৫ জন তার ভাইকে তুলে নিয়ে গেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রমনা জোনের ডিসি মারুফ হোসেন সরদার জানান, পুলিশ অভিযান চালায়নি। অন্য কেউ অভিযান চালিয়েছে কিনা তা তিনি জানেন না।

গোলাম আযমের বাড়ির কেয়ার টেকার আযাদ বলেন, ‘আমি রাত নয়টার দিকে হাসপাতাল থেকে বাড়ির সামনে আসি। তখন গোয়েন্দা পুলিশ এসে আমার কাছে জানতে চান আব্দুল্লাহিল কোথায়। আমি কিছু জানি না বলাতে তারা আমাকে বেধড়ক পেটায়। গলির ভেতর প্রায় ২০টি মাইক্রোবাসে ৩০ জনের মত গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) এসেছিল। পরে তারা রাত এগারোটার দিকে তাকে (আবদুল্লাহিল আমান আযমী) আটক করে নিয়ে যায়।

তিনি আরও জানান, ‘চলে যাওয়ার সময় গোয়েন্দা পুলিশেরা আমাকে দেখিয়ে দিতে বলে, এই ভবনের আশেপাশে কোথায় কোথায় সিসি ক্যামরা আছে। গোলাম আযম সাহেবের বাড়িতে ক্যামেরা ছিল না। কিন্তু মহল্লার নিরাপত্তার ক্যামেরা ছিল গলিতে। সেগুলো তারা খুলে নিয়ে গেছে।’

জানা গেছে, আমান আযমীর বাসা ১১৯/২ মগবাজারে।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest

43bb6994cfddca838472b3de19c2d66b-Untitled-3অপ্র‌তিম: সাতক্ষীরাবাসীর প্রিয় মোস্তাফিজ সর্বশেষ দেশ ছেড়েছিলেন সাসেক্সের হয়ে ন্যাটওয়েস্ট টি-টোয়েন্টি ব্লাস্ট ও রয়্যাল লন্ডন কাপে অংশ নিতে। কিন্তু দেশে ফিরলেন কাঁধে অস্ত্রোপচারের চিহ্ন বয়ে। লন্ডনে সার্জন অ্যান্ড্রু ওয়ালেসের ছুরির তলায় কাঁধের সফল অস্ত্রোপচারের পর সোমবার দুপুর ১২টায় দেশে ফিরেছেন তিনি।

সাসেক্সের হয়ে খেলেছেন মাত্র দুটো ম্যাচ। ন্যাটওয়েস্ট টি-টোয়েন্টি ব্লাস্টে নিজের প্রথম ম্যাচে দারুণ করলেও দ্বিতীয় ম্যাচে কাঁধে চোট পান দেশের এই তরুণ পেসার। এরপর খেলতে পারেননি আর একটি ম্যাচও। ১২ আগস্ট লন্ডনের একটি হাসপাতালে সার্জন ওয়ালেস তাঁর কাঁধে অস্ত্রোপচার করেন। পুনর্বাসন-প্রক্রিয়া শেষে মোস্তাফিজের মাঠে ফিরতে চার মাস লেগে যেতে পারে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা।

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ঘরের মাঠের সিরিজটা মিসই করতে যাচ্ছেন তি‌নি। এ ব্যাপারে তাঁর মধ্যেও কাজ করছে শঙ্কা। দেশে পা রেখেই বললেন, ‘যেকোনো সিরিজ খেলতে না পারাটাই তো খারাপ লাগার।’

আপাতত পুনর্বাসন-প্রক্রিয়ায় মনোযোগ মোস্তাফিজের। অস্ত্রোপচারের সময় ঢাকা থেকে লন্ডন গিয়েছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী। পুনর্বাসনের ব্যাপারে তাঁর ওপরই নির্ভরতা বাংলাদেশের ‘কাটার’ মাস্টারের, ‘ডা. দেবাশীষকে সবকিছু বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। কী কী করতে হবে, তিনি সব জানেন। তবে চার সপ্তাহ পর পুনর্বাসন-প্রক্রিয়ার কাজ আরও বাড়বে।’

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest

5স্বাস্থ্য: খালি পেটে রসুন খাবার বিষয়ে বিভিন্ন মতবাদ রয়েছে। খালি পেটে রসুন খেলে বিভিন্ন রোগ দূর হবার সাথে সাথে বিভিন্ন রোগের বিরুদ্ধে প্রতিরোধও গড়ে তোলে। খালি পেটে রসুন খাবার উপকারিতা জেনে নিন-

১. যক্ষ্মা প্রতিরোধক:

আপনার যদি টিবি জাতীয় কোন সমস্যা ধরা পড়ে, তাহলে সারাদিনে একটি সম্পূর্ণ রসুন কয়েক অংশে বিভক্ত করে বার বার খেতে পারেন। এতে আপনার যক্ষ্মা রোগ নির্মূলে সহায়তা পাবেন।

২. উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে:

অসংখ্য মানুষ যারা উচ্চ রক্তচাপের শিকার তারা দেখেছেন, রসুন খাবার ফলে তাদের উচ্চ রক্তচাপের কিছু উপসর্গ উপশম হয়। রসুন খাবার ফলে তারা শরীরে ভাল পরিবর্তন দেখতে পায়।

৩. অন্ত্রের জন্য ভাল:

খালি পেটে রসুন খাবার ফলে যকৃত এবং মূত্রাশয় সঠিকভাবে নিজ নিজ কার্য সম্পাদন করে। এছাড়াও, এর ফলে পেটের বিভিন্ন সমস্যা দূর হয় যেমন- ডায়রিয়া। এটা হজম ও ক্ষুধার উদ্দীপক হিসেবে কাজ করে। এটি স্ট্রেস দূর করতেও সক্ষম। স্ট্রেস বা চাপের কারনে আমাদের গ্যাস্ট্রিক এর সমস্যায় পরতে হয়। তাই, খালি পেটে রসুন খেলে এটি আমাদের স্নায়বিক চাপ কমিয়ে এ সকল সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে।

৪. শরীরকে ডি-টক্সিফাই করে:

অন্যান্য ঔষধের তুলনায় শরীরকে ডি-টক্সিফাই করতে রসুন কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। বিশেষজ্ঞদের মতে, রসুন প্যারাসাইট, কৃমি পরিত্রাণ, জিদ, সাঙ্ঘাতিক জ্বর, ডায়াবেটিস, বিষণ্ণতা এবং ক্যান্সার এর মত বড় বড় রোগ প্রতিরোধ করে।

৫. শ্বসন:

রসুন যক্ষ্মা, নিউমোনিয়া, ব্রংকাইটিস, ফুসফুসের কনজেশন, হাপানি, হুপিং কাশি ইত্যাদি প্রতিরোধ করে। রসুন এ সকল রোগ আরোগ্যের মাধ্যমে বিস্ময়ের সৃষ্টি করেছে।

৬. প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক:

গবেষণায় দেখা গেছে, খালি পেটে রসুন খাবার ফলে এটি একটি শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিক এর ন্যায় কাজ করে। সকালে নাস্তার পূর্বে রসুন খেলে এটি আরও কার্যকরীভাবে কাজ করে। তখন খালি পেটে রসুন খাবার ফলে ব্যাকটেরিয়াগুলো উন্মুক্ত হয় এবং তখন রসুনের ক্ষমতার কাছে তারা নতিস্বীকার করে। তখন শরীরের ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া সমূহ আর রক্ষা পায় না।

# সতর্কবার্তা:

যাদের রসুন খাবার ফলে এলার্জি হবার আশঙ্কা রয়েছে বা হয় তারা অবশ্যই কাঁচা রসুন খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। যাদের রসুন খাবার ফলে মাথা ব্যথার সমস্যা হয়, বমির প্রাদুর্ভাব হয় বা অন্য কোন সমস্যা দেখা যায় তাদের কাঁচা রসুন না খাওয়া ভাল।

অনেকের রসুনের গন্ধ সহ্য হয় না। এখন রসুনকে ঔষধের বড়ি হিসেবে তৈরি করার জন্য সুপারিশ করা হয়েছে।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest

স্বদেশ সংবাদ: মন্ত্রিসভায় নীতিগত অনুমোদন পেয়েছে নারী ও পুরুষের গোপনাঙ্গের সংজ্ঞা নির্ধারণ করে তৈরি আইনের খসড়া। এই সংজ্ঞা অনুযায়ী গোপনাঙ্গের  কতটুকু অংশের ছবি ও ভিডিও গphoto-1471859841ণমাধ্যম বা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রচার বা প্রকাশ করা যাবে তা-ও নির্ধারণ করা হয়েছে।

সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদের সভাকক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন-২০১৬’ নামের আইনের খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়। এতে নারী-পুরুষের গোপনাঙ্গের সংজ্ঞাও নির্ধারণ করা হয়েছে।

‘গোপনীয়তা লঙ্ঘনের পরিস্থিতির ক্ষেত্র’ বলতে আইনের ১৭ নম্বর ধারার ৪(ঘ) উপধারায় বলা হয়েছে, ‘কোনো পরিস্থিতিতে কোনো ব্যক্তির যুক্তিসঙ্গত প্রত্যাশা থাকিতে পারে যে-(অ) কোনো ব্যক্তি গোপনীয়ভাবে অনাবৃত হইতে পারেন, এমতাবস্থায় তাহার ব্যক্তিগত এলাকায় তাহার নজর এড়িয়ে চিত্রবন্দী করা হইয়াছিল। অথবা (আ) সরকারি বা ব্যক্তিগত জায়গা নির্বিশেষে কোনো ব্যক্তি তাহার ব্যক্তিগত এলাকার এমন কোনো অংশে ছিল যাহা জনসাধারণের নিকট দৃশ্যমান হইবে না।’

আইনে গোপনীয় ছবি প্রেরণের বিষয়ে বলা হয়েছে, ‘ইলেকট্রনিক উপায়ে কোনো দৃশ্যমান ছবি প্রদর্শিত করিবার অভিপ্রায়ে কোনো ব্যক্তি বা ব্যক্তিসমূহের নিকট প্রেরণ করা।’

‘দৃশ্য ধারণ’ বিষয়ে আইনে বলা হয়েছে, ‘যেকোনো উপায়ে ভিডিও টেপ, আলোকচিত্র, ফিল্ম বা রেকর্ড করা।’

আইনে অপরাধ ও সাজা

নীতিগত অনুমোদন পাওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, ২০১৬-এর ১৭ নম্বর ধারার ১ নম্বর উপধারায় বলা হয়েছে, ‘কোনো ব্যক্তি অসৎ উদ্দেশ্যে ইচ্ছাকৃতভাবে বা জ্ঞাতসারে অন্য কোনো ব্যক্তির অনুমতি ছাড়া তাহার ব্যক্তিগত ছবি তোলে এবং প্রকাশ করে বা প্রেরণ করে বা বিকৃত করে বা ধারণ করে তাহা হইলে এমন কার্য ব্যক্তিগত গোপনীয়তা লঙ্ঘনের ক্ষেত্রে অপরাধ হইবে।’

আইনের একই ধারার ২ নম্বর উপধারায় বলা হয়েছে, ‘কোনো ব্যক্তি যদি এই আইন বা তদাধীন প্রণীত বিধি বা প্রবিধানের কোনো বিধানের অধীন কোনো ইলেকট্রনিক রেকর্ড, বই, রেজিস্টার, পত্র যোগাযোগ, তথ্য, দলিল বা অন্য কোনো বিষয়বস্তুতে প্রবেশাধিকারপ্রাপ্ত হইয়া, সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির সম্মতি ব্যতিরেকে, কোনো ইলেকট্রনিক রেকর্ড, বই, রেজিস্টার, পত্র যোগাযোগ, তথ্য, দলিল বা অন্য কোনো বিষয়বস্তু অন্য কোনো ব্যক্তির নিকট প্রকাশ করেন, তাহলে তাহার এই কার্য হইবে একটি অপরাধ।’

উল্লিখিত ধারার ১ নম্বর উপধারায় বর্ণিত অপরাধের জন্য সাজা নির্ধারণ করে বলা হয়েছে, ‘উপধারা ১-এর অধীনে কোনো অপরাধ করিলে তিনি অনধিক পাঁচ বছর কারাদণ্ডে বা অনধিক ১০ লক্ষ টাকা অর্থদণ্ডে বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হইবেন।’

উপধারা ২-এ দণ্ডের বিষয়ে বলা হয়েছে, ‘এই ধারার অধীনে কোনো ব্যক্তি কোনো অপরাধ করিলে তিনি অনধিক দুই বৎসর কারাদণ্ডে, বা অনধিক দুই লক্ষ টাকা অর্থদণ্ডে বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হইবেন।’

পর্নোগ্রাফি ও শিশু পর্নোগ্রাফির দণ্ড

পর্নোগ্রাফি ও শিশু পর্নোগ্রাফি রোধে  আইনের ১৮ নম্বর ধারায় বলা হয়েছে, কোনো কম্পিউটার, কম্পিউটার সিস্টেম বা ডিজিটাল নেটওয়ার্কের মাধ্যমে পর্নোগ্রাফি বা অশ্লীল উপাদান উৎপাদন বা প্রকাশ করলে কিংবা সংরক্ষণ করলে অথবা এ ধরনের বিজ্ঞাপন প্রকাশ করলে, বিজ্ঞাপনদাতা কর্তৃক পর্নোগ্রাফি বা অশ্লীল উপাদানসমূহ বিতরণ বা প্রদর্শন করলে এই আইন লঙ্ঘন হবে। এর দায়ে কোনো ব্যক্তির এক বছর কারাদণ্ড বা পাঁচ লাখ টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ড হতে পারে।

১৮ ধারার ২ নম্বর উপধারায় বলা হয়েছে, কোনো কম্পিউটার, কম্পিউটার সিস্টেম বা কম্পিউটার নেটওয়ার্ক বা কোনো ডিজিটাল নেটওয়ার্ক বা ডিজিটাল ডিভাইস, ডিজিটাল সিস্টেমের মাধ্যমে শিশু পর্নোগ্রাফি বা শিশু সম্বন্ধীয় অশ্লীল উপাদান উৎপাদন বা প্রকাশ বা সংরক্ষণ বা বিতরণ বা প্রদর্শন করলে বা এগুলোতে শিশু পর্নোগ্রাফি বা এ ধরনের অশ্লীল উপাদান প্রবেশ করলে আইন অনুযায়ী অপরাধ হবে। সে অপরাধে কোনো ব্যক্তির ১০ বছর কারাদণ্ড বা ১০ লাখ টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ড হতে পারে।

আইনে এসব অপরাধের বিচার বিদ্যমান সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনালে নিষ্পত্তির কথা বলা হয়েছে। অভিযোগকারীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের পর থেকে ১৮০ দিনের মধ্যে মামলা নিষ্পত্তির বিধান রাখা হয়েছে।

শিশু পর্নোগ্রাফি রোধে কঠোর বিধানের কথাও বলা হয়েছে খসড়া এই আইনে।  প্রস্তাবিত আইনের ১৭ নম্বর ধারার ৪ (গ) উপধারায় বলা হয়েছে, ‘গোপনীয় অঙ্গ অর্থ নগ্ন বা অন্তর্বাস পরিহিত যৌনাঙ্গ, যৌনাঙ্গের আশপাশ, নিতম্ব বা মহিলার স্তন।’

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest

yousufএম. বেলাল হোসাইন : ২ বছর ধরে নিখোঁ‌জ বাঁশদহা আলহাজ্ব ম‌োহাম্মদ আলী দাখিল মাদরাসার সহকারী ম‌ৌলভী আবু তাহ‌ের জিয়াউদ্দিন ম‌োঃ ইউসুফ। দীর্ঘদিন মাদ্রাসায় অনুপ‌স্থিত থাকায় ২১ অক্টােবর’১৪, ১৫ নভ‌েম্বর’১৪ ও ৩১ নভ‌েম্বর, ১৪ তারিখ ৩ দফায় মাদ্রাসায় অনুপ‌স্থিত থাকার সুস্পষ্ট জবাব দিয়‌ে প্রতিষ্ঠান য‌োগদান‌ের নির্দ‌েশ প্রদান করা হয়। কিন্তু তারপরও প্রতিষ্ঠান‌ে যোগদান বা উপস্থিত হননি ওই শিক্ষক এটিজ‌েডএম ইউসুফ।
ইউসুফ যশোর জ‌েলার ক‌েশবপুর উপজ‌েলার আগরহাটি গ্রাম‌ের আব্দুল বারী ওয়াদুদী’র ছ‌েল‌ে।
এবিষয়‌ে বাঁশদহা আলহাজ্ব মা‌েহাম্মাদ আলী দাখিল মাদ্রাসায় খোঁ‌জ নিয়‌ে জানা গেছ‌ে, ওই শিক্ষক বিগত ১৩ স‌েপ্ট‌েম্বর’১৪ সাল‌ের পর থ‌েক‌ে মাদ্রাসায় আস‌েন না। তব‌ে সর্বশ‌েষ গত ১৮ অক্টা‌েবর’১৪ পর্যন্ত মাদ্রাসার হাজিরা খাতায় তার স্বাক্ষর পাওয়া যায়।

মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ আর‌ো জানায়, দীর্ঘদিন প্রতিষ্ঠান‌ে অনুপস্থিত থাকার কারণ‌ে ন‌োটিশ প্রদান‌ের পরও কা‌েন খবর না প‌েয়‌ে গত ১৬ জানুয়ারি’১৫ সাতক্ষীরা থ‌েক‌ে প্রকাশিত দ‌ৈনিক কাফ‌েলা ও ১৭ জানুয়ারি’১৫ ঢাকা থ‌েক‌ে প্রকাশিত দ‌ৈনিক খবরপত্র পত্রিকায় চূড়ান্ত ন‌োটিশ প্রদান করা হয়। এরপর গত ০২ ফেব্রুয়ারি’১৫ তারিখ শিক্ষক এটিজ‌েডএম ইউসুফ উপজ‌েলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার‌ের কার্যালয়‌ে হাজির হল‌ে তার সম্মতিত‌ে এ বিষয়‌ে তদন্তের জন্য ৭ ফ‌েব্রুয়ারি’১৫ তাদ‌ের দিন নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু তদ‌ন্তের পূ‌র্বেই ৫ ফ‌েব্রুয়ার‌ি শারিরীক অসুস্থতার কারণ দ‌েখান ওই শিক্ষক। তখন তদ‌ন্তের তারিখ পরিবর্তন কর‌ে ৯ ফ‌েব্রুয়ারি নির্ধারণ করেন উপজলা শিক্ষা অফিসার জয়নাল আব‌েদীন। অথচ ৯ ফ‌েব্রুয়ারিও তিনি উপস্থিত হত‌ে অপারগতা প্রকাশ কর‌ে ১৫ ফ‌েব্রুয়ারি নির্ধারণের জন্য অনুরা‌েধ জানান। স‌ে ম‌োতাবেক ১৫ ফ‌েব্রুয়ারি’১৫ তারিখ তদ‌ন্তের জন্য বাঁশদহা আলহাজ্ব মাহাম্মদ আলী দাখিল মাদরাসায় গ‌েল‌ে ওই শিক্ষকক‌ে পাননি উপজ‌েলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার। এটিজ‌েডএম ইউসুফ এর ব্যবহৃত ম‌োবাইল ফ‌োনও য‌োগাযা‌েগ করত‌ে না প‌ের‌ে এ বিষয় ব্যবস্থা গ্রহণ‌ের জন্য ১৮ ফ‌েব্রুয়ারি’১৫ তারিখ‌ে সদর উপজ‌েলা নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি প্রতিব‌েদন জমা দ‌েন উপজ‌েলা শিক্ষা অফিসার।

এবিষয় উক্ত মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত সুপার ম‌োহাম্মাদ রিয়াজুল ইসলাম এর সাথ‌ে য‌োগায‌োগ করল‌ে তিনি বল‌েন, ১৮ অক্টােবর’১৪ পযর্ন্ত তিনি উপস্থিত ছিল‌েন। তার বাড়ি যশ‌োর জ‌েলার ক‌েশবপুর উপজ‌েলায়। মটরসাইক‌েল যা‌েগ‌ে এস‌ে তিনি কমর্স্থ‌লে যোগ দিত‌েন। তব‌ে তিনি সাতক্ষীরার ক‌োথাও থাকত‌েন কি না স‌ে বিষয়‌ে আমাদ‌ের সাথ‌ে ওই শিক্ষক কিছু বল‌েন নি। এ বিষয়‌ে আমরা তার কাছ‌ে জিজ্ঞাসা করল‌ে তিনি এড়িয়‌ে য‌েত‌েন। এছাড়া ওই তারিখ‌ের পর থ‌েক‌ে আমরা ক‌েউ তাক‌ে আর দ‌েখিনি। ওই শিক্ষক জামায়াত বা ক‌োন সংগঠনর সাথ‌ে জড়িত ছিল‌েন কি না এমন প্রশ্নের জবাব‌ে তিনি বল‌েন, কা‌েন রাজনীতির সাথ‌ে জড়িত ছিল‌েন কি না স‌ে বিষয়‌ে আমার জানা ন‌েই।

0 মন্তব্য
0 FacebookTwitterGoogle +Pinterest